স্বামী-স্ত্রী পরস্পরে মিলিত হলে কি করতে হবে

স্বামী-স্ত্রী পরস্পরে মিলিত হলে কি করতে হবে?

স্বামী-স্ত্রী যৌনাঙ্গ পরস্পর মিলিত হলে গসল করা ফরয হয়ে যায়। হযরত আবু হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণীত তিনি বলেন, রসুল (সাঃ) বলেছেন পুরুষ যখন নারীর চার শাখার মধ্যে বসে (সংগম করে) তখন অবশ্যই তার উপর গোসল ফরয হয়। (বুখারী)

অত্র হাদীস থেকে বলা যায় যে, নারীর চার শাখায় অর্থাৎ স্ত্রী চিৎ হয়ে শুয়েছে। স্বামী স্ত্রী উপর মুখোমুখি হয়েছেন। স্ত্রীর উরু দুটির ঠিক মধ্যখানে। শরীরের সমস্ত ওজনটাই যাতে স্ত্রীর উপর না পড়ে, সে জন্য স্বামী তার হাত ও হাটু বিছানার উপরে রেখে নিজেকে অনেক খানিক হালকা করে নিয়ে সংগম করে, তখন অশ্যই তার উপর গোসল ফরয হয়ে যাবে।

হযরত আয়েশা (রাঃ) থেকে বর্ণীত, তিনি বলেন রসুর (সাঃ) বলেছেন, স্বামী-স্ত্রী যখন চার শাখা মিলিয়ে বসে ও পুরুষের লিঙ্গ স্ত্রীর লিঙ্গের সাথে মিলিত হয়, তখনই গোসল ফরয হয়ে যায়। (মুসলিম,তিরমিযী, আহমদ)

এখানে প্রশ্ন হতে পারে, যৌন সংঙ্গম পুরাপুরি হলে গোসল ফরয হবে না শুধু মাত্র ফরয হয়ে যাবে? আলোচ্য হাদীস এবং এ পর্যায়ের বহু সংখ্যক সহীহ হাদীস হতে প্রমাণীত হয় যে, দু‘লিঙ্গ মিলিত হলেই গোসল হয়ে যায়। যেমন তিরমিযী ও ইবনু মাজাহ থেকে প্রমাণীত।



হযরত আয়েশা (রাঃ) হতে বর্ণীত, ‍তিনি বলেন যখন পুরুষাঙ্গ স্ত্রীর যৌনাঙ্গের ভিতরে প্রবেশ করবে,তখনই গোসল ফরয হয়ে যাবে। এ কাজটি আমি এবং রসুল (সাঃ) করেছিলাম। অতঃপর আমরা দু‘জনই গোসল করেছি। (তিরমিযী,ইবনে মাজাহ)

আলোচ্য হাদীস থেকে জানা যায়, যখন স্বামী-স্ত্রীর লিঙ্গদ্বয় একত্রিত হয়, পরস্পরে মিলে অর্থাৎ যখন পুলিংঙ্গ স্ত্রীর যৌনাঙ্গের অভ্যন্তরে প্রবেশ করবে, উভয় লিঙ্গের একত্রে মিলন ঘটবে, তখনই গোসল করা ফরয হয়ে যাবে। হাদীস শাস্ত্রবিদগণ বলেন পুলিঙ্গে অগ্রভাগটুকু স্ত্রী যৌন অঙ্গের ভিতরে ঢুকলেই গোসল ফরয হয়ে যাবে। বীর্যপাত হোক আর না হোক। শরীয়াতের এ জুরুরী মাসআলাটি লজ্জাজনক হলেও মা আয়েশা (রাঃ) এরুপ গপণ কথা প্রকাশ করতে দ্বিধাবোধ করেননি।

হযরত আবু হুরায়রা (রাঃ) বলেন রসুল (সাঃ) বলেছেন , যখন তোমাদের কেউ স্ত্রীলোকের চার শাখার (দু‘হাত ও দু‘পায়ের) সম্মুখে বসে (সঙ্গম করে) বীর্যপাতের চেষ্টা করে, তখন নিশ্চয় গোসল ফরয হয়,যদিও সে বীর্যপাত না ঘটায়। (বুখারী, মুসলিম)

যৌন সঙ্গম সম্পূর্ণতা লাভ না কলেও শুধুমাত্র লিঙ্গদ্বয় পরস্পরের সাথে মিলিত হলেই গোসল আবশ্যক হয়ে যায়। তবে একটি লিঙ্গ অপর লিঙ্গের উপর শুধু রাখা হলেই গোসল ফরয হবে না। গোসল ফরয হওয়ার জন্য আরো কিছু অগ্রসর হওয়া আবশ্যক। যেমন লিঙ্গের শুধুমাত্র অগ্রভাগটুকু প্রবেশ করে সাথে সাথে লিঙ্গ বের করে আনলেও গোসল ফরয হয়ে যায়।

আলোচ্য বিষয়টি ভালো লেগে থাকলে শেয়ার করবেন এবং কমেন্ট করবেন। আপনাদের এই কমেন্ট আমাদেরকে নতুন আলোচনা করতে উৎসাহ করে এবং সব সময় আলোর বণীর সঙ্গে যুক্ত থাকবেন ধন্যবাদ।

Leave a Comment