সবর ও ধৈর্য্য মহৎ গুণ

সবর ও ধৈর্য্য মহৎ গুণ;

সবর শব্দের অর্থ হলো ধরে রাখা, বন্দি করে রাখা। যখন কোনো মুরগীকে খাচায় বন্দী করে রাখা হয়, তখন তার জন্য আরবীতে সবর শব্দ ব্যবহ্রত হয়। জীবনে সফল হতে সবরের বিকল্প নেই। যে কয়জন নবীকে মহান আল্লাহর সর্বশ্রেষ্ট পাঁচ জন নবী বলে গণ্য করেছেন, সেই পাঁচ জনের সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য সবর। যেমন আল্লাহ তা‘আলা বলেন তুমি দৃঢ় প্রতিজ্ঞা নবীগণের মতো ধৈর্য ধারন করো। (সুরা আহকফ আয়াত নং ৩৫) ।

সবর মূলত তিন প্রকার যথাঃ-

১। ভালো কাজে সবর করাঃ মনে করুন কেউ প্রতিদিন সকালে কুরআনে তিলাওয়াত করতে চায়, কিন্তু দুআ-একদিন তিলাওয়াত করার পর আর পার না। কেউ হয়তো রাতে উঠে তাহাজ্জুদ সালাত আদায় করেতে চায়, কিন্তু দুই-একদিন আদায় করার পর আর পারে না ছেড়ে দেয়। অধিকাংশ মানুষ এই সমস্যার অভিযোগ করে থাকেন। এই সমস্যার প্রকৃত কারণ মূলত তাদের সবর নেই। নিজের মনের বিরুদ্ধে লড়াই করে কোনো কাজের উপর তারা টিকে থাকতে পারে না। নিজেকে ধরে রাখতে পারে না। জীবণে সফল হতে হলে সবচেয়ে জরুরী জিনিস হচ্ছে এই প্রথম প্রকার সবরের।



২। মন্দ কাজে সবর করাঃ মহান আল্লাহর নিষেধাজ্ঞাগুলো থেকে মনকে বিরত রাখার যুদ্ধে সবর করতে পারাটা প্রকৃত মুমিনের পরিচয়। গান শুনব না, তওবা করলাম। কিন্তু এক সপ্তাহ পর আবার গান শুনছি। বিড়ি-সিগারেট খাব না বলে প্রতিজ্ঞা করলাম। বন্ধর প্ররোচনায় পড়ে মাসখানেক পর আবার টানতে শুরু করলাম। এটাই হেরে যাওয়া; সবর করতে না পারা । যারা সফলকাম তারা মন্দ কাজ থেকে বিরত থাকার ক্ষেত্রে কঠিনভাবে সবর করতে পারে। নিজেকে ধরে রাখতে পারে। নিজের সিদ্ধান্তের উপর টিকে থাকতে পারে। মনের সাথে যুদ্ধে জয়লাভ করতে পারে। ঝঞা বিক্ষুব্ধ নদীতে হাল ধরে থেকে যতক্ষণ জীবন আছে ততক্ষন নৌকা চালাতে থাকাই সফলতা।

৩। বিপদ-আপদে সবর করাঃ মানুষের চলার পথ ফুলশয্যা নয়, বিপদ-আপদ থাকবেই; সেগুলোর সাথে সংগ্রাম করতে পারাই মূলত মানুষের জীবণ। সফল মানুষরা বিপদে ভেঙ্গে পড়ে না। মচকে যায় না; বরং বাউন্স ব্যাক করে। পূর্ণ উদ্যমে ঘুরে দাঁড়ায়। আবারও চেষ্টা করে। বার বার হেরে গিয়ে বার বার ঘুরে দাঁড়ানোই সফলতা ।

মহান আল্লাহ বলেন; হে ঈমাণদারগণ! তোমরা সাহায্য প্রার্থনা করো সালাত ও ধৈর্যধারনের মাধ্যমে। নিশ্চয় মহান আল্লাহ ধৈর্যশীলগণের সাথে আছেন। (সুরা বাক্বারাহ আয়াত নং ১৫৩)।  আর মহান আল্লাহ যাদের সাথে থাকবেন তারা সফল না হলে কারা সফল হবে? তাইতো বলা হয় সবরে মেওয়া ফলে। ফলে তাড়াহুড়ো নয় বরং দাঁত কামড়ে মাটি আঁকড়ে সবর করে কাজ করে যাওয়াই সফলতা।

Leave a Comment