সফলতার সূ্ত্র কী

সফলতার সূ্ত্র কী-

সালাফে সলেহীনের একটি বৈশিষ্ট্য হচ্ছে ,তারা ফজরের পর ঘুমাতেন না। যদি সমগ্র রাতে ক্লান্তিকর কোনো সফরে বা কাজে থাকেন, তবুও তারা ফজরের পরে ঘুমাতেন না। বরং সূর্য উঠার অপেক্ষা করতেন। সূর্য উঠার পর বিশ্রামের জন্য ঘুমাতে যেতেন।

হযরত আনাস (রাঃ) থেকে বর্ণীত তিনি বলেন রসুল (সাঃ) বলেছেন, যে ব্যক্তি ফজরের সালাত জামা‘আতের সাথে আদায় করবে, অত:পর বসে থেকে মহান আল্লাহর যিকির করতে থাকবে সূর্য উঠা পর্যন্ত, সে একটি হজ্জ ও ওমরাহ করার সমান নেকী পাবে। (তিরমিযী হাঃ৫৮৬)।

স্বয়ং রসুল (সাঃ) ও এই হাদীসের প্রতি আমল করতেন। তিনি নিজেও ফজর সালাত পরে সূর্য উঠা পর্যন্ত আল্লাহর স্বরনে মশগুল থাকতেন। (সহীহ মুসলিম হাঃ৬৭০)। ঘুমানো বা দুনিয়াবী কোনো কথা-কাজ থাকলে তা সূর্য ‍উঠার পর শুরু করতেন।

রাতের সালাতঃ

রাতের সালাত এমন একটি  সিক্রেট চাবি, যা মানুষকে এমন উচ্চতায় নিয়ে যায় , যা সে কোনো দিন কল্পনাও করেনি। মানুষ যদি নিজের আশা-ইচ্ছা ও চাওয়া পাওয়া মহান আল্লার নিকট থেকে পূরণ করিয়ে নিতে চায় তাহলে তার সবচেয়ে সহজ উপায় রাতের সালাত। আমাদের রসুল মুহাম্মাদ (সাঃ) আজ যে অনন্য উচ্চতায় অবস্থঅন করেছেন, তারও মূল কারণ হচ্ছে রাতের সালাত। তিনি যে শেষ নবী (সাঃ)-এর গুরু দায়িত্ব যথা যথভাবে পালন করতে পেরেছেন, মহান আল্লাহর অমীয় বাণী কুরআনের মতো  বোঝা বহণ করতে পেরেছেন, তারও মূল কারণ রাতের সাসলাত। যেমন মহান আল্লাহ বলেন ,,,



হে চাদর জড়িয়ে ঘুমন্ত ব্যক্তি! অল্প হলেও রাতে জাগো ! অর্ধেক রাত অথবা তার চেয়ে কম হলেও জাগো! অথবা তার চেয়ে বেশি জাগো এবং কুরআন তিলাওয়াত করো তারতিল সহকারে!  নিশ্চয় আমি তোমার ভারী কিছু অবতীর্ণ করব ! নিশ্চয় রাতে উঠা প্রবৃত্তি দমনে অধিক সহায়ক এবং বাকপটুতায় অধিক স্পষ্টকারী। (সুরা মুযাম্মিল আয়াত নং ১-৬)।

এই আয়াতে কারীমায় মহান আল্লাহ ভারী কিছু অবতীর্ণ করার প্রস্তুতি স্বরুপ নবী মুহাম্মাদ (সাঃ)-কে রাত জেগে সালাত আদায় করতে বলেছেন। কেননা  পবিত্র কুরআনের মতো মহান বাণীর ভঅর বহন এবং শেষ নবীর গুরু দায়ীত্ব পালনের জন্য প্রবৃত্তির উপর নিয়ন্ত্রন প্রতিষ্টা করা যরুরী। আর রাতে জাগরিত হওয়ার উপর নিয়ন্ত্রণ  প্রতিষ্ঠা করতে সবচেয়ে বেশি সহায়ক । কেননা রাতে ঘুম তেকে সালাত আদায় করতে উঠলে নিজের মনের বিরূদ্ধে চরম লড়াই করেই উঠতে হয়।

মহান আল্লাহ আরো বলেন , আর অতিরিক্ত  দায়য়িত্ব স্বরুপ রাতে তাহাজ্জুদের সালাত আদায় করো। আশা করা যায় তোমার প্রতিপালক তোমাকে সর্বোচ্চ প্রশংসিত স্থানে অধিষ্ঠিত করবেন। (সুরা বাণী ইসরা আয়াত নং৭৯)।

মাক্বামে মাহমুদ কিয়ামতের মাঠে সর্বোচ্চ মর্যাদার জায়গা যা মহান আল্লাহ এক মাত্র মুহাম্মাদ (সাঃ) –কে  দান করবেন। এইরুপ সর্বোচ্চ স্থানে পৌঁছার জন্যই মহান আল্লা তাকে রাতে উঠে সালাত আদায় করতে বলেছেন। সুতরাং রাতে উঠে সালাত আদায় করা সফলতার সর্বোচ্চ শিখরে পৌঁছার অন্যতম মাধ্যম।

Leave a Comment