যৌন শক্তি বর্ধক খাদ্য সমূহ

যৌন শক্তি বর্ধক খাদ্য সমূহঃ-

স্বাস্থ্য ভালো রাখার জন্য নিয়মিত সুষম খাবার খাওয়া আমাদের সকলের জন্য দরকার। প্রতিদিনে আমরা যে খাদ্য খেয়ে থাকি তা পাকস্থলীতে গিয়ে হজম হয়। খাদ্য থেকে সর্বপ্রথম রক্ত বীর্য সৃষ্টি হয়। এরপর অন্ডকোষের মাধ্যমে রক্ত থেকে স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় বীর্যূ তৈরী হয়। যা মানব জীবনের বিশেষ পদার্থ এবং যৌন ক্রিয়ার মূল শক্তি। এজন্য সর্বদা এমন খাদ্য খাওয়া উচিৎ যা দ্বারা যৌনশক্তি বৃদ্ধি পায়।এবং দৈহিক শক্তিতে কোন প্রকার কমতি না আসে। এবং মানুষের মন-মস্তিস্কও দুর্ব ল হতে না পারে। অপরদিকে যৌনশক্তি হ্রাসকারী খাদ্যদ্রব্যে থেকে নিজেকে দুরে রাখতে হবে। নিচে যৌন শক্তি স্বাভাবিক থাকার জন্য কিছু খাদ্যের তালিকা দেয়া হলো-

শস্য জাতীয় খাদ্যঃ চাউল,গম,ছোলা,মটর,মুগ,মষকালাই,মটরশুটি ইত্যাদি।ফল-মূল জাতীয় খাদ্য যেমন ,মিষ্টি আম,কাঠাল,কলা,আঙ্গুর,আপেল,নাশপাতি,জামরুল,পানিফল,ডালিম,ইত্যাদি।

উদ্ভিদ বা সবজি জাতীয় খাদ্যঃ পিয়াজ,রসুন,কচু,ঢেঁড়স,লাউ,মিষ্টি আলু,গোল আলু,শালগম,বীটচিনি,গাজর,গুড়,পেস্তাবীজ,ইছবগুলের ভুষি।

প্রাণী জাতীয় খাদ্যঃ সকল হালাল প্রাণীর গোস্ত ও মগজ, বাচ্চা মোরগ,কবুতর,তিতির,বেলে হাঁস,হাঁসের ডিম,চড়ই,মগজ সহ তাজা মাছ বিশেষত রুই মাছ,গরু মহিষের দুধ, দধি মাখন,ঘি, কচি বকরীর গোশত, মাথা,পা,কলিজা,মগজদার হাড়ের ঝোল।

মসল জাতীয় খাদ্যঃ লবঙ্গ,গোলমরিচ, দারুচিনি জাফরান,যাত্রিক,জায়ফল,এলাচি ইত্যাদি। শুস্ক ফল জাতীয় খাদ্যঃ নারিকেলের শাঁস,বাদাম চিনগুয়া,খেজুর, পেস্তা,তালমাখনা,কিসমিস, মোনাক্কারা,যয়তুন,খুরানী,আখরোট ইত্যাদি।

যৌনশক্তির ক্ষতিকর খাদ্য দ্রব্যঃ টক জাতীয় ফল,আচার, চাটনি,তেতুল,লেবু,সিরকা,টক আম,অধিক পরিমাণে লাল মরিচ,গরম সমলা,মাত্রাতিরিক্ত চা,কফি,গুয়ামৌরি ও সবুজ ধুনিয়া ইত্যাদি এগুলো মাত্রারিক্ত খাওয়া উচিৎ নয়।

অনেক আলিমগণ লিখেছেন, মাখনের সাথে খেজুর মলিয়ে খেলে যৌন শক্তি বৃদ্ধি পায়, শরীর গঠণ বাড়ে ও কন্ঠস্বর পরিস্কার হয়। মাখন ও মধু একত্রে মিশিয়ে খেলে রক্তাবরক ঝিল্লি প্রদাহ রোগের উপকার হয় এবং শরীর মোটা করে।মাখনের সাথে খেজুর মিলিয়ে খাওয়া রসুল (সাঃ)-এর কাছে খুবই প্রিয় বস্ত ছিল। (কিতাবুত তীব)



মাযাকুল আরেফীনে হাদীসটি উল্লেখ করে টিকায় বলা হয়েছে যে, হারীসা ভাঙ্গা গম গোসত ঘি ও মসলা যোগে পাক করা হয়। হযরত হুরায়রা (রাঃ) হতে বর্ণীত তিনি বলেন, রসুল (সাঃ) একদিন হযরত জিব্রাইল (আঃ) এর কাছে নিজের যৌনশক্তির অভিযোগ করলে জিব্রাইল (আঃ) বললেন আপনি হারীসা ভক্ষন করুন। কারণ এতে চল্লিশ জন পুরুষের শক্তি আছে। (তিব্বে নব্বী)

ইমাম গাযযালী (র,) এহইয়াউল উলূমে লিখেছেন যে, চারটি জিনিসে যৌনশক্তি বৃদ্ধি করে। ১) চড়ই পাখি, ২) ইউনানী শাস্ত্রের গৌরবময় হালুয়া বহেড়া, ৩)পেস্তা, ৪)তাজা শাখ সবজি।মাযাকুল আরেফীনে হাদীসটি উল্লেখ করে টিকায় বলা হয়েছে যে, হারীসা ভাঙ্গা গম,গোশত, ঘি ও মসলা যোগে পাক করা হয়।

হযরত আলী (রাঃ) বলেন, এক ব্যক্তি রসুল (সাঃ)-এর নিকটে অভিযোগ করলেন যে, আমার ঘরে কোন সন্তানাদি হয় না। একথা শুনে রসুল (সাঃ) তাকে একটা ব্যবস্থা দিলেন যে, তুমি ডিম খেতে থাকো। আবূ নাঈম ইবনে আব্দুল্লাহ জাফর কর্তৃক উল্লেখ আছে যে, মহানবী (সাঃ) বলেছেন সীনার গোশত অন্য সব গোশত শরীরের যৌন শক্তি বৃদ্ধি করে।

উলামায়ে কেরাম বলেছেন যে, হযরত আলী (রাঃ)-এর তখন চোখে ব্যাথা ছিল আর চোখের ব্যাথা অবস্থায় খেজুর খাওয়া ক্ষতিকর। এ জন্যই মহানবী (সাঃ) হযরত আলী (রাঃ)-কে খেজুর খেতে বারণ করেন। আর বীট লবণ সম্পর্কে বলেছেন এটা খাও এটা তোমার জন্য উপকারী এবং তোমার অক্ষমতা দূর করে দেবে। তাই খাওয়ার অনুমতি দেয়া হয়েছে।

তিরমিযী শরীফ ও অন্যান্য হাদীসে গ্রন্থে উম্মে মুনযির (রাঃ) থেকে বর্ণীত আছে যে, এবার তিনি  নবী করিম (সাঃ)-এর সামনে কিছু খেজুর ও বীটচিনি আনয়ন করালে রসুল (সাঃ) সেখানে উপস্থিত ছিল। হযরত আলী (রাঃ) কে খেজুর খেতে নিষেধ করেন আর বিটচিনি সম্পর্কে বললেন যে, চিনি থেকে খাও। এটা তোমার জন্য উপকারী।

কোনো কোনো বর্ণনায় আছে যে, হযরত আয়েশা (রাঃ) কর্তৃক বর্ণিত আছে যে, মহানবী (সাঃ) হাদীস খুব পছন্দ করতেন। হাদীস তিনটি উপাদানে তৈরী। খেজুর, মাখন ও জমাট দধি। এ খাদ্য দ্বারা শরীর শক্তিশালি হয় এবং রতি শক্তি বাড়ে। তাই রতি শক্তি বৃদ্ধির জন্য এখাদ্য গ্রহণ করা যেতে পারে। হাদীস দ্বারা প্রমাণিত হয় যে, খাবার গ্রহণে সাবধানতা অবলম্বন করে চলা সুন্নাত। আর এটাও বুঝা গেল যে, বিটচিনি খেলে দুর্বলতা দুর হয় এবং রতিশক্তিতে স্পন্দন সৃষ্টি করে। (তিব্বে নব্বী)

হযরত হুযায়ল বিন হাকাম (রাঃ) বলেন রসুল (সাঃ) বলেন,দেহের লোম তাড়াতাড়ি দুর করলে যৌনশক্তি বৃদ্ধি পায়। যায়তুন তেল খাওয়া ও মালিশ করা, তিল ও খেজুর একত্রে ব্যবহার করা কালোজিরা এবং লূবিয়া ও যৌন শক্তি বৃদ্ধি করে। কালোজিরা এবং রসুন ও যৌনশক্তি বৃদ্ধি করে থাকে।

আলোচনাটি ভালো লেগে থাকলে অনেক অনেক শেয়ার করবেন এবং কমেন্ট করবেন। আপনাদের এই সুন্দর কমেন্ট আমাদেরকে নতুন আলোচনা করতে মোটিভেট করে এবং সব সময় আলোর বাণীর সঙ্গে যুক্ত থাকবেন ধন্যবাদ।

Leave a Comment