যৌন ক্ষমতার হ্রাস বৃদ্ধি এবং দ্রুত বীর্যপাতের ক্ষতি কী

যৌন ক্ষমতার হ্রাস বৃদ্ধি এবং দ্রুত বীর্যপাতের ক্ষতি কী?

সকল নারী-পুরুষের মধ্যে কামঋপু বা যৌন চাহিদা সমান নয়। কারো মধ্যে যৌন ক্ষমতা বেশী, আবার কোন পুরুষের মধ্যে কম থাকে, আবার কোন লোকের মধ্যে যৌন ক্ষমতা কম দেখা যায়। তদ্রুপভাবে মহিলাদের ব্যাপারটিও কম বেশি হয়ে থাকে। পরিবেশ আবহাওয়া খাদ্য ও শারীরিক গঠনের কারনে এর কম বেশী হয়ে থাকে।যৌনশক্তি যার মধ্যে যত বেশী পরিমাণে বিদ্যমান সহবাসে সে তত বেশি স্বর্গীয় সুখ লাভ করে থাকে।

পুরুষের মধ্যে যৌন ক্ষমতা কম এবং স্ত্রীর মধ্যে বেশি থাকলে স্বামী যৌন মিলনে তৃপ্তি লাভ করলেও এক্ষেত্রে স্ত্রীর জন্য হয় চরম অশান্তি। কারন স্ত্রীর বীর্যপাতের আগেই স্বামীর বীর্যপাত হয়ে গেলে তখন স্ত্রীর অস্বস্থী বোধ করে। যার ফলে এ বিষয়টি স্বামীরও দৃষ্টি এড়ায় না যায় ফলে স্বামী সুখ পাওয়ার পরও স্ত্রীর অবস্থা লক্ষ্য করে সে দারুনভাবে লজ্জিত হয়। এর ফলে স্বামী বেচারারও কম কষ্ট হয় না। এর ফলে স্ত্রীর যেমন সহবাসের প্রতি অনিহা ও স্বামীর ঘৃণাভাব জন্ম নেয়, তেমনি স্বামীও ধীরে ধীরে রতিক্রিয়ায় দূর্বল হয়ে পড়ে, পূর্বের মত আর উৎসাহ উদ্দীপনা থাকে না।



দ্রুত বীর্যপাতের ক্ষতিঃ দ্রুত বীর্যপাত হল এরকম স্বামীর মনে সহবাসের কথা উদয় হতেই কিংবা সহবাস শুরু করতে না করতেই বা এক বা আধ মিনিটের ভেতরেই তার বীর্যপাত হয়ে যাওয়া। অথচ স্তীর জন্য কমপক্ষে দুই-তিন মিনিট বা তার বেশি সময় না গেলে সে কোন তৃপ্তিই লাভ করতে পারে না। তৃপ্তি না পাওয়ায় এটা স্ত্রীর জন্যে খুবই পীড়াদায়ক এবং কষ্টকর আর বিতৃষ্ণা ভাব সৃষ্টি করে। দ্রুত বীর্যপাত হওয়া এক ধরনের যৌন রোগ বিশেষ। এ রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির আরেকটি ক্ষতি হলো তার স্ত্রীর গর্ভে সন্তান হয় না।এ রোগ হলে পুরুষাংগের রগ ঢিলা হয়ে যায়। এর জন্য উপযুক্ত চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া উচিত, এবং উপাদেয় খাবার গ্রহণ করা দরকার।

আলোচনাটি ভালো লেগে থাকলে অনেক অনেক শেয়ার করবেন এবং কমেন্ট করবেন। আপনাদের এই সুন্দর কমেন্ট আমাদেরকে নতুন আলোচনা করতে মোটিভেট করে এবং সব সময় আলোর বণী সঙ্গে যুক্ত থাকবেন ধন্যবাদ।

Leave a Comment