মাযহাব অর্থ কী? মাযহাব মানা যাবে কী?

মাযহাব অর্থ কী? মাযহাব মানা যাবে কী?

মাযহাব আরবী শব্দ এর অর্থ হলো চলার পথ। শরীয়াতে মাযহাব একটিই। সেটা হলো আল্লাহর ও রসুল (সাঃ)-এর পথ, পবিত্র কোরআন ও সহীহ হাদীসের পথ।(আহমাদ ,নাসাঈ,মিশকাত হাঃ১৬,১৬৬)।

আল্লাহ তা‘আলা বলেন  নিশ্চিতভাবে এটি আমার সরল পথ। অতএব এ পথে চল এবং অন্যান্য পথে চলো না। তাহলে সেসব পথ তোমাদেরকে তার পথ থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেবে। মহান আল্লাহ তোমাদেরকে এ নির্দেশ দিয়েছেন, যাতে তোমরা মুত্তাকি হতে পারো। ( সুরা আন আম আয়াত নং ১৫৩)।

এছাড়া আর দ্বিতীয় কোনো মাযহাব নেই, যে সমস্ত মাযহাব মুসলিম সমাজে প্রচলিত আছে তার সবই স্বর্ণযুগের বহু পরে সৃষ্টি। যেমন শাহ অলিউল্লাহ মুহাদ্দিস দেহলভী (রাঃ) তাঁর বিশ্ববিখ্যাত গ্রন্থ হুজ্জাতুলল্লাহিল বালেগার মধ্যে লিখেছেন ৪র্থ শতাব্দী হিজরীর পূর্বে কোনো মুসলমান নির্দিষ্টভাবে কোনো একজন বিদ্বানের মাযহাবের তাক্বলীদের উপরে সংঘর্ষব্ধ ছিল না। (হুজ্জাতুল্লাহ বালেগা:১/১৫২,১৫৩)।



সুতরাং সমাজে প্রচলিত এসব মাযহাব মানা ফরয নয়। এমনকি মাযহাব না মানলে কেউ কাফেরও হবে না বরং এ সমস্ত মাযহাব মানলেই মানুষের মাঝে সংকীর্ণতার সৃষ্টি হয়। মুসলিম মাত্রই স্বাধীনভাবে কেবল পবিত্র কোরআন ও সহীহ হাদীসের উপর আমল করবে। এছাড়া কোনো মাযহাব বা তন্ত্রের অনুসরণ করতে পারে না। যেমন ৪র্থ শতাব্দী হিজরীর পূর্বের কোনো মানুষ মাযহাববের অনুসারী ছিলেন না।

আলোচ্য প্রশ্ন উত্তরগুলি ভালো লেগে থাকলে অনেক অনেক শেয়ার করবেন এবং কমেন্ট করবেন। আপনাদের এই সুন্দর কমেন্ট আমাদেরকে নতুন প্রশ্ন উত্তর পোষ্ট করতে মোটিভেট করে এবং সব সময় আলোর বাণীর সঙ্গে যুক্ত থাকবেন ধন্যবাদ।

Leave a Comment