মহিলারা লাশের খাটিয়া বহন করতে পারবে কী?

মহিলারা লাশের খাটিয়া বহন করতে পারবে কী?

পরুষ থাকা অবস্থায় মহিরাদের খাটিয়া বহণ করা যায়েয নয়। কেননা মহিলাদের খাটিয়া বহণ করা বা মাটি দেওয়ার ব্যাপারে সহীহ হাদীস ও কোরআনে কোন প্রমান পাওয়া যায় না। কেননা লাশের খাটিয়া বহন করলে স্বাভাবিক ভাবেই তাদেরকে কবর স্থানে যেতে হবে। অথচ তাদের জানাযার পশ্চাদানুগমণ করা উচিৎ নয়।

উম্মু আত্বিয়্যা (রাঃ) বলেন আমাদেরকে জানাযার পশ্চাদানুগমণ করতে নিষেধ করা হয়েছে। তবে কঠোরভাবে নিষেধ করা হতো না। (বুখারী হাঃ ১২৭৮, মুসলিম হাঃ ৯৩৮)।

লাশের খাটিয়া বহনের সময় বহনকারী পরিবর্তন করা এবং কবরের উপর খেজুর ডাল ও পানি ছিটানো সুন্নাত কি?

এগুলি সুন্নাত বিরোধী কাজ। বিনা প্রয়োজনে বহনকারী পরিবর্তনের কোন বিধান নেই। তবে পরস্পরকে সহযোগিতা করতে পারে। আর রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) দু’টি কবরের উপরে যে
খেজুরের দু’টি কাঁচা চেরা ডাল পুঁতেছিলেন সেটা ছিল তাঁর জন্য খাছ। তাঁর বা কোন ছাহাবীর পক্ষ থেকে পরবর্তীতে এমন কোন আমল করার নযীর নেই বুরাইদা আসলামী (রাঃ) ব্যতীত। কেননা তিনি এটার জন্য অছিয়ত করেছিলেন (বুখারী হাঃ১৩৬১)।

অতএব এটা স্পষ্ট যে কেবলমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের উদ্দেশ্যে নেক আমলের কারণেই কবর আযাব মাফ হ’তে পারে। ফুল দেওয়া বা কাঁচা ডাল পোতার কারণে নয়। কেননা এসবের কোন প্রভাব মাইয়েতের উপর পড়ে না। যেমন আব্দুর রহমান (রাঃ)-এর কবরের উপর তাঁবু খাটানো দেখে ইবনু ওমর (রাঃ) বলেন, ওটাকে হটিয়ে ফেল হে বৎস, কেননা ওটা তার আমলের উপরে ছায়া করছে বা বাধা সৃষ্টি করছে । (মিশকাত হাঃ৩৩৮ এর টীকা ৫)।



আর কবরের মাটি দৃঢ় করার জন্য কবরে পানি ছিটিয়ে দেওয়া মুস্তাহাব। রসূল (সাঃ) তাঁর সর্বশেষ পুত্র ইব্রাহীমকে দাফন করার পর কবরের উপর পানি ছিটিয়ে ছিলেন (ত্বাবারাণী আওসাত্ব হাঃ৬১৪১, মিশকাত হাঃ১৭০৮, ছহীহ হাঃ৩০৪৫)।

আলোচ্য প্রশ্ন উত্তরগুলি ভালো লেগে থাকলে অনেক অনেক শেয়ার করবেন এবং কমেন্ট করবেন। আপনাদের এই সুন্দর কমেন্ট আমাদেরকে নতুন প্রশ্ন উত্তর পোষ্ট করতে মোটিভেট করে এবং সব সময় আলোর বাণীর সঙ্গে যুক্ত থাকবেন ধন্যবাদ।

Leave a Comment