পানির ব্যবস্থা থাকা সত্ত্বেও অসুখ বৃদ্ধীর আশস্কায় ফরয গোসল করতে না পারলে করনীয়

পানির ব্যবস্থা থাকা সত্ত্বেও অসুখ বৃদ্ধীর আশস্কায় ফরয গোসল করতে না পারলে করনীয়?

পানির ব্যবস্থা থাকা সত্ত্বেও যদি কেউ অসুখ বৃদ্ধর আশস্কায় ফরয গোসল করতে না পারে, তাহলে কি তার সালাত ক্বাযা করবে নাকি তায়াম্মুম করে সালাত আদায় করবে?

পানির ব্যবহারে রোগ বৃদ্ধির ভয় থাকলে তায়াম্মুম করে সালাত আদায় করবে। ক্বাযা করার সুযোগ নাই। জাবের (রাঃ) থেকে বর্ণীত তিনি বলেন আমরা কোনো এক সফরে বের হলাম। আমাদের একজনের মাথায় পাথর লেগে মাথা ফেটে যায়। অতঃপর তার স্বপ্নদোষ হয়। সে তার সাথীদের জিজ্ঞেস করে তায়াম্মুম করতে পারবে কিনা? তারা বলে না। আপনি তো পানি ব্যবহার করতে সক্ষম। সে গোসল করে নেয় এবং মারা যায়।

রসুল (সাঃ) এ খবর শুনতে পেলে বলে উঠে তারা তাকে হত্যা করেছে। সে তায়াম্মুম করলেই যথেষ্ট হতো। (আবু দাউদ হাঃ৩৩৫, মিশকাত হাঃ৫৩১)। এ হাদীস থেকে প্রমাণীত হয় যে গোসলের কারনে রোগ বৃদ্ধির আশস্কা থাকলে তায়াম্মুম করতে হবে।

হযরত আম্মার ইবনে ইয়াসির (রাঃ) থেকে বর্ণীত, তিনি বলেন রসুল (সাঃ) আমাকে কোনো প্রয়োজনে পাঠিয়েছিলেন সেখানে আমি জুনুবী হয়ে যাই এবং পানি না পাওয়ায় ধূলার উপরে চার পা বিশিষ্ট যন্তুর মতো গড়াগড়ি করি। এর পর রসুল (সাঃ)-এর কাছে এসে আমি তা বর্ণনা করি। তখন তিনি আমাকে বললেন সে অবস্থায় তোমার জন্য এতটুকুই যথেষ্ট ছিল যে, তুমি এভাবে তোমার হাত দু‘টিকে করতে (তিনি তা দেখাতে গিয়ে) তাঁর দু‘হাতের তালুকে একবার মাটির উপরে মারলেন এর পর বাম হাতকে ডান হাতের উপর মাসেহ করলেন এবং তার দু‘হাতের বাহির ভাগ ও মুখমন্ডলও মাসেহ করলেন। (বুখারী হাঃ ৩৪৭,মুসলিম হাঃ৩৬৮) সহীহ।

হে ঈমাণদারগণ  তোমরা যখন নেশাগ্রস্ত অবস্থায়  নামাযের নিকটবর্তী হয়োনা। যতক্ষণ না বুঝতে সক্ষম হও যা কিছু তোমরা মুখে বল। আর নাপাক  আবস্থায়ও যতক্ষণ না গোসল করে নাও। আর যদি তোমরা অসুস্থ হয়ে থাক কিংবা সফরে থাক অথবা তোমাদের মধ্য থেকে কেউ যদি প্রস্রাব-পায়খানা থেকে এসে থাকে কিংবা স্ত্রী সহবাস করে থাক কিন্তু পরে যদি পানি না পাও, তবে পাক-পবিত্র মাটির দ্বারা তায়াম্মুম করে নাও-তাতে স্বীয় মুখমন্ডল ও হাতগুলো মাসেহ কর। নিশ্চয়ই আল্লাহ তা’আলা ক্ষমাশীল। (সুরা নিসা আয়াত নং ৪৩)।

এই আয়াতের ব্যাখ্যায় আব্বাস (রাঃ) বলেন বলেন , যদি কোনো ব্যক্তি আল্লাহর রাস্তায় কোনো জখম বা আঘাতপ্রাপ্ত হয় এবং সে জুনুবী বা নাপাকী হয়ে যায় আর গোসল করলে মৃত্যুর আশস্কা করে তাহলে এরুপ অবস্থায় সে তায়াম্মুম করবে। (দারকুত্বনী হাঃ১/১৭৭,ইমাম হাকিম হাঃ১৬৫)।

Leave a Comment