দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধির জন্য কী কী আমল করা যায়?

দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধির জন্য কী কী আমল করা যায়?

আল্লাহ তা‘আলা মানুষকে অনেক অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের সম্বন্বয়ে সৃষ্টি করেছেন। মানব দেহের প্রতিটি অঙ্গ প্রত্যঙ্গই গুরুত্বপূর্ণ। চোখ তার অন্যতম একটি। নানা কারণে মানুষের চোখের সমস্যা হয়। চোখ ওঠা থেকে শুরু করে দৃষ্টি শক্তিও হ্রাস পায়। চোখের এ সব সমস্যা ও দৃষ্টি শক্তি ফিরে পেতে রয়েছে কুরআন ও হাদিসের আমল। তা থেকে নিম্নে কিছু তুলে ধরা হলো-

দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধির জন্য কোরআন ও হাদীসে নির্ধারিত কোনো দু‘আ বা আমল বর্ণিত হয়নি। তবে শরীর, কর্ণ ও চোখের সুস্থতার জন্য নিম্নের দু‘আটি পড়া যায়। তা হলো- আল্লাহুম্মা আফিনি ফি বাদানি, আল্লাহুম্মা আফিনি ফি ছামিই, আল্লাহুম্মা আফিনি ফি ফি বাসরি, লা ইলাহা ইল্লা আংতা। অর্থঃ হে আল্লাহ তুমি আমার দেহ সুস্থ রাখো, হে আল্লাহ আমার শ্রবণ শক্তিতে সুস্থতা দান করো। হে আল্লাহ আমার দৃষ্টিশক্তিতে সুস্থতা দান করো, আপনি ছাড়া কোনো প্রকৃত ইলাহ নেই। উক্ত দু‘আ সম্পর্কে আব্দুর রহমান ইবনু আবূ বক্কর বলেন, আমি আমার পিতাকে বল্লাম আব্বা আমি আপনাকে প্রতিদিন ভোরে ও সন্ধায় তিনবার করে এ দু‘আটি বলতে শুনি। তিনি বলেন আমি রসুল (সাঃ)-কে এ বাক্যগুলো দ্বারা দু‘আ করতে শুনেছি। তাই আমিও তাঁর নিয়ম অনুসরণ করতে ভালোবাসি। ( আবু দাউদ হাঃ ৫০৯০)।

এবং পাশাপাশি ভালো মানের সুরমা চোখে লাগালে চোখের দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধি হতে পারে। রসুল (সাঃ) বলেন তোমাদের জন্য উত্তম সুরমা হচ্ছে ইছমিদ, তা চোখের জ্যোতি বাড়ায় এবং চোখের পাতায় লোম গজায়। (আবু দাউদ হাঃ৩৮৭৮, মিশকাত হাঃ ৪৪৭২)।



উল্লেখ্য যে সবুজ ঘাসের দিকে বা সুন্দরী নারির দিকে তাকালে দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধি পায় এ মর্মে বর্ণিত সকল হাদীস জাল। (সিলসিলা সহীহ হাঃ ১৩৩, হিলয়্যা ৩/২০১)। অনুরুপ ভাবে দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধির জন্য ফাকাসাফনা আনকা গিতআকা ফাবাসারকা ইয়াউমা হাদিদ। আয়াতটি পড়ে চোখে ফুক দেওয়ার কোনো প্রমান নেই।

আলোচ্য প্রশ্ন উত্তরগুলি ভালো লেগে থাকলে অনেক অনেক শেয়ার করবেন এবং কমেন্ট করবেন। আপনাদের এই সুন্দর কমেন্ট আমাদেরকে নতুন প্রশ্ন উত্তর পোষ্ট করতে মোটিভেট করে এবং সব সময় আলোর বাণীর সঙ্গে যুক্ত থাকবেন ধন্যবাদ।

Leave a Comment