দু‘আ করার সময় বলা হয় মুহাম্মাদ (সাঃ) এর রওজায় পৌঁছে দাও এটা বলা যাবে কি?

দু‘আ করার সময় বলা হয় মুহাম্মাদ (সাঃ) এর রওজায় পৌঁছে দাও এটা বলা যাবে কি?

রসুল (সাঃ) বলেছেন যে ব্যক্তি এমন আমল করল যে ব্যাপারে আমাদের কোনো নির্দেশনা নেই, তা প্রত্যাখ্যান। (সহীহ মুসলিম হাঃ ১৭১৮)।

উল্লেখিত দু‘আ করার বিষয়টি ভারত উপমহাদেশের বিদ‘আতীদের নবআবিষ্কৃত পদ্ধতি। রসুল (সাঃ) হতে এর পক্ষে কোনো প্রমাণ পাওয়া যায় না। এমনকি মৃর্ত্যুর পরে তাঁর কবরে ছওয়াব পৌঁছানোর ব্যাপারেও তিনি কোনো নির্দেশনা দেননি। সাহাবীগণও এভাবে কখনো দু‘আ করেছেন এ মর্মে কোনো প্রমান পাওয়া যায় না। সুতরাং এমন পদ্ধতিতে দু‘আ করা হতে বিরত থাকতে হবে। অন্যথায় তা বিদ‘আদ হবে।

হযরত আয়েশা (রাঃ) বলেন ,রসুল (সাঃ) বলেছেন যে ব্যক্তি আমার দ্বীনের মধ্যে নতুন কিছু আবিষ্কার করবে,, যা এর অন্তর্ভুক্ত নয়, তা পরিত্যাজ্য। (সহীহ বুখারী হাঃ২৬৯৭, মুসলিম হাঃ১৭১৮, মিশকাত হাঃ১৪০)।

উল্লেখ্য যে দু‘আ হলো এক প্রকার ইবাদত। (মুসনাদে আহমাদ ঞাঃ১৮৩৭৮, আবু দাউদ হাঃ ১৪৭৯, ইবনু মাজাহ৩৮২৮, মিশকাত হাঃ২২৩০) তাই দু‘আ ইবাদত হিসাবে তার  পদ্ধতি সুন্নাত অনুযায়ী করতে হবে।

রসুল (সাঃ) কোন পদ্ধতিতে দু‘আ করেছেন , আমাদেরকে ও সে পদ্ধতিতেই দু‘আ করতে হবে। তার রেখে যাওয়া পদ্ধতি ছেড়ে অন্য কোনো পদ্ধতিতে দু‘আ করলে তা কবুল হওয়ার বদলে গোনাহ বহে।

হে আল্লাহ আমাদেরকে সঠিক জ্ঞান দান করুন এবং সঠিক দ্বীন বুঝার তৌফিক দিন তা অনুযায়ী আমল করার তৌফিক দান করুন,  আল্লাহুম্মা আমিন।

Leave a Comment