একই পশুতে আক্বীকা ও কুরবানী করা যাবে কী?

একই পশুতে আক্বীকা ও কুরবানী করা যাবে কী?

সন্তান জন্মের পর আল্লাহ তা‘আলার শুকরিয়া আদায়ের উদ্দেশে জন্মের সপ্তম দিনে পশু জবাই করাকে আক্বীকা বলে। আক্বীকা করা মুস্তাহাব। হাদিস শরিফে আকিকার প্রতি উৎসাহিত করা হয়েছে। রাসুল (সাঃ)-কে আক্বীকা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন, যে ব্যক্তি সন্তানের আক্বীকা করার ইচ্ছা করে, সে যেন তা পালন করে। ছেলের জন্য সমমানের দুইটি ছাগল। আর মেয়ের জন্য একটি। (মুসান্নাফে হাঃ ৭৯৬১)।

অন্য হাদিসে আছে, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, সন্তানের সঙ্গে আকিকার বিধান রয়েছে। তোমরা তার পক্ষ থেকে রক্ত প্রবাহিত কর (অর্থাৎ পশু যবাই কর) এবং সন্তানের শরীর থেকে কষ্টদায়ক বস্তু (চুল) দূর করে দাও। (বুখারী হাঃ ৫৪৭২)।

না একই পশুতে কুরবানী ও আক্বীকা করা যাবে না। এটা শরিআতের সাথে প্রতারনা। রসুল (সাঃ) বা সাহাবায়ে কেরামের যুগে এ ধরনের আমলের অস্তিত্ব ছিল না। (নায়লুল আওত্বার ৬/২৬৮, আক্বীকা অধ্যায় মিরআত ২/৩৫১ ও ৫/৭৫।

হযরত সামুরা ইবনে যুনদুব (রাঃ) হতে বর্ণিত তিনি বলেন, রসূল (সাঃ) বলেছেন, আক্বীকা দেয়ার মাধ্যমেই সন্তান বন্ধক হিসেবে রক্ষিত হয়। এটা সন্তান জন্মের সপ্তম দিনে তার পক্ষ থেকে যবেহ করা হয়। এবং নাম রাখতে হয় ও মাথা মু-ন করতে হয়। (সহীহ বুখারী হাঃ ৫১৫৫)।

আলোচ্য প্রশ্ন উত্তরগুলি ভালো লেগে থাকলে অনেক অনেক শেয়ার করবেন এবং কমেন্ট করবেন। আপনাদের এই সুন্দর কমেন্ট আমাদেরকে নতুন প্রশ্ন উত্তর পোষ্ট করতে মোটিভেট করে এবং সব সময় আলোর বাণীর সঙ্গে যুক্ত থাকবেন ধন্যবাদ।

Leave a Comment